মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমি

সম্ভাবনাময় অথচ পশ্চাৎপদ হাওড়-বাওরে ভরপুর বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের (খাসিয়া/জৈন্তা অংশ) পাদদেশে অবস্থিত যা নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি অপরূপ সৌন্দর্যে ও পাখীর কলরবে মুখরিত। উত্তাংশে উচু ভূমি আর দক্ষিনাংশেহাওড় এই উপজেলাকে দিয়েছে এক বৈচিত্রময় সৌন্দর্য। মুসলিম,হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রীস্টান ছাড়াও হাজং, গারো, মনিপুরি, ত্রিপুরা সহ কয়েকটি উপজাতি সম্প্রদায়ের লোকজন পাহাড়ের পাদদেশে সৌহাদ্য ও সম্প্রীতির সাথে বসবাস করে। বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলার সংযোগস্থলে যাদুকাটা নদীর তীরে  প্রতি বছর চৈত্র মাসে বসে বারুনী মেলা ও  শাহ্ আরেফিন ফকিরের আসত্মানায়  আসে অসংখ্যভক্ত; লক্ষ হিন্দু- মুসলিমের পদধূলিতে মুখরিত হয়ে উঠে এ অঞ্চল।

বাংলাদেশের ৩০ টি কৃষি অঞ্চলের মধ্যে এই উপজেলা ২১ ও ২২  কৃষি পরিবেশ অঞ্চলের  অন্তর্ভুক্ত এবং মাটি অত্যন্ত অম্ল। ধান এ উপজেলার প্রধান ফসল হলেও চিনাবাদাম, শাকসবজি, আলু গম, মিষ্টি আলু ইত্যাদি ফসলও আবাদ হয়ে থাকে।  এছাড়া  উদ্যান ফসল যেমন- লেবু, কমলালেবু, লিচু, আনারসসহ  নানাবিধ অপ্রচলিত ফল এবং  মশলাজাতীয় ফসল যেমন-  আদা, হলুদ, গোল মরিচ, দারুচিনি, তেজপাতাসহ মহামূল্যবান আগর চাষের রয়েছে বিপুল সম্ভাবনা। এ অঞ্চলের প্রধান প্রধান সম্পদ হচ্ছে- ধান,সবজি, মাছ, পাথর  আর বালু।

কৃষি নির্ভর শিল্প কারখানা স্থাপনের অফুরমত্ম সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও যথোপযুক্ত উদ্যোগের অভাবে তা গড়ে উঠেনি। সামাজিক ও ব্যক্তি উদ্যোগে যথেষ্ট আত্ম কর্মসংস্থানমূলক কর্মকান্ড গ্রহণ না করায় এখানকার অনেক লোককেই বেকার বা অলস সময় কাটাতে হয়। 

এখানকার উল্লে­খযোগ্য সংখ্যক ভূমির মালিক প্রবাসী জীবন যাপন বা অন্য পেশায় নিয়োজিত বলে বর্গা চাষীদের ওপর কৃষি কাজে নির্ভরশীলতা বেশি যা আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি সম্প্রসারণের অন্তরায়। উপজেলার হাওর-বাওর দক্ষিণাংশে আর উত্তরাংশে উচু ভূমি বেশিরভাগ এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর  তুলনামূলকভাবে নিচে ও শক্ত পাথরযুক্ত, তাই সেচ ব্যবস্থা অপ্রতুল। বর্ষা মৌসুমে অথৈ পানি থাকলেও

   খরা মৌসুমে সেচের পানির অভাবে বিপুল পরিমাণ জমি অনাবাদী থাকে। সেচ কার্যক্রমের মাধ্যমে যা চাষের আওতায় আনা যেতে পারে ।